অনুগ্রহ করে অপেক্ষা করুন...

al-ihsan.net
বাংলা | English

দেশের খবর - ১৭ জানুয়ারী, ২০১৭
 
চোরাকারবারিদের হাতে ধ্বংস হচ্ছে ভোলার সংরক্ষিত বনাঞ্চল
নিজস্ব প্রতিবেদক:

কর্তৃপক্ষের দায়িত্বহীনতার কারণে চোরাকারবারীদের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না ভোলার উপকূলীয় এলাকার সংরক্ষিত বনাঞ্চল। চোখের সামনেই সবুজ বেষ্টনি কেটে পোড়ানো হচ্ছে ইটভাটার জ্বালানি হিসেবে। এভাবে চলতে থাকলে উপকূলের পরিবেশ বিপর্যয়ের মুখে পড়বে বলে আশঙ্কা সচেতন মহলের। তবে বন বিভাগ ও জেলা প্রশাসন বলছে, বন ধ্বংসকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। দ্বীপজেলা ভোলাকে প্রাকৃতিক ঝড়-পানীচ্ছ্বাস থেকে রক্ষা, ভুমিক্ষয় রোধ ও নতুন চর স্থায়ী করতে সাগরকুলে সবুজ বনের প্রাচীর গড়ে তোলে বন বিভাগ। ইতোমধ্যে ৯০ হাজারের বেশি হেক্টর এলাকাতে সংরক্ষিত বন ঘোষণা করে সব ধরনের গাছ কাটার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। সরকারের এ নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে চোরাকারবারিরা নির্বিঘেœ ধ্বংস করছে সবুজ বন। আর অবৈধ ইটভাটায় এসব কাঠ পুড়িয়ে নষ্ট করছে পরিবেশ। তজুমদ্দিনের চর জহিরউদ্দিন ও মনপুরার কলাতলীর চরে বাগান উজাড় করে গড়ে উঠছে বসতি। সবুজ বেষ্টনী উজাড়ের মাধ্যমে বন ও পরিবেশ দুটোই নষ্ট হচ্ছে উল্লেখ করে বন ধ্বংসকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপের দাবি সচেতন মহলের। এদিকে ভোলা উপকূলীয় বন বিভাগ বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল আমিনের দাবি, বারবার অভিযান চালানো হলেও অবৈধ ইটভাটার কারণে বন উজাড় বন্ধ করা যাচ্ছে না। অন্যদিকে ভোলা জেলা প্রশাসক সেলিম উদ্দিন জানালেন, পরিবেশ ধ্বংসকারী ইটভাটাগুলো পর্যায়ক্রমে বন্ধ করা হবে। জেলার সাগরকুলের ৩৫টি চরে প্রায় ৯৩ হাজার হেক্টর সংরক্ষিত বন রয়েছে। আর বন দস্যুদের কবল থেকে এসব রক্ষার জন্য বন বিভাগের ১৪টি বিট ও ১২টি কেন্দ্র রয়েছে।







For the satisfaction of Mamduh Hazrat Murshid Qeebla Mudda Jilluhul Aali
Site designed & developed by Muhammad Shohel Iqbal